বাংলাদেশের বগুড়ায় শিয়া মসজিদে হামলা ও পশ্চিমাদের ধান্দাবাজি

বাংলাদেশের বগুড়ায় এক শিয়া মসজিদে হামলা হয়েছে। এটা নিয়ে অনেক ধান্ধাবাজ ব্লগারকে দেখলাম- বাংলাদেশ সন্ত্রাসী রাষ্ট্র হয়ে গেছে বলে মুখে ফেনা তুলছে। দাবি করছে- বাংলাদেশে নাকি আইএস এসেছে, বাংলাদেশে আমেরিকার হামলা করা উচিত বলেও তারা দাবি করেছে। (শিয়া মসজিদে হামলার খবর- http://goo.gl/tFtzG2)

যাই হোক, এমন উদ্ভট দাবি যারা করছে তাদের কিছু তথ্য জেনে রাখা প্রয়োজন। খোদ আমেরিকাতেই কিন্তু চার্চগুলো খ্রিস্টানদের থেকে নিরাপদ নয়। এই তো গত ১৭ই জুন, ২০১৫ তারিখে দেশটির সাউথ ক্যারোলিনা অঙ্গরাজ্যে কালোদের একটি ২০০ বছরের প্রাচীন চার্চে হামলা চালায় এক শেতাঙ্গ সন্ত্রাসী। ঐ সময় চার্চে সবাই প্রার্থনারত ছিলো। এমন অবস্থায় এলোপাতাড়ি গুলি ছুড়তে থাকে ডিল্যান রুফ নামক ২১ বছর বয়সী এক খ্রিস্টান শেতাঙ্গ সন্ত্রাসী। গুলিতে ঘটনাস্থলেই মারা যায় চার্চের যাজকসহ মোট ৯ জন। বলাবাহুল্য এ হামলা যে বিচ্ছিন্ন ঘটনা তা নয়, পরবর্তীতে প্রকাশ পেয়েছে ঠাণ্ডা মাথায় শেতাঙ্গ সন্ত্রাসী রুফ এ হামলা চালায় এবং যুক্তরাষ্ট্র জুড়ে গৃহযুদ্ধ বাধানোই তার উদ্দেশ্য। (http://goo.gl/WSaOz4,http://goo.gl/DQPCz8http://goo.gl/9OIzJ8,

সত্যিই বলতে, ঘটনা যদি একটি ঘটতো তাও হতো । ১৭ জুন চার্চে ৯ জন হত্যাকাণ্ডের পর ২২শে জুন ফের কালোদের চার্চে হামলার ঘটনা ঘটে আমেরিকায়। টেনেসি অঙ্গরাজে কালোদের একটি চার্চকে আগুন দিয়ে পুড়িয়ে ভষ্মিভূত করা হয়। পরের দিন (২৩ জুন) আরেকটি চার্চে হামলা । এবার জর্জিয়াতে কালোদের চার্চে আগুন। এরপরের দিন (২৪ জুন) ফের আগুন দেওয়া হলো নর্থ ক্যারোলিনার আরেকটি কালোদের চার্চে। (http://goo.gl/UkujBY,https://goo.gl/r1cKBN)
চার্চে হামলা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে এতটাই স্বাভাবিক বিষয় যে গত ৮ই অক্টোবর থেকে ২২ অক্টোবর অর্থাৎ ২ সপ্তাহে মিসৌরী অঙ্গরাজ্যে ৭টি চার্চকে আগুন দিয়ে ভষ্মিভূত করা হয়। (http://goo.gl/f9iVb1)
বলাবাহুল্য, বাংলাদেশে শিয়াদের মসজিদে মাত্র ১ জন মারা গেলে পুরো মুসলিম জাতিকে সন্ত্রাসী তকমা দেওয়া হয়, মুসলিম দেশে আইএস আছে বলে বিমান হামলা চালানোর হুমকি দেওয়া হয়।। অথচ আদৌ মুসলিমরা এটা করেছে কি না তার কোন প্রমাণ নেই। অন্যদিকে জাতিগত উগ্র শেতাঙ্গ আমেরিকানরা যে সারা দিন কালোদের চার্চে আগুন দিচ্ছে এটা নিয়ে কেউ উচ্চ-বাচ্চ করে না, সকল শেতাঙ্গ আমেরিকানদের সন্ত্রাসী তকমা দিচ্ছে না, শেতাঙ্গ সন্ত্রাসী দমনে আমেরিকায় বোম্বিং করার কথা বলছে না, ড্রোন হামলা চালাচ্ছে না।
আমি নিশ্চিত, যারা শিয়া মসজিদে হামলা চালিয়েছে তারাও ঐ সন্ত্রাসবাদী আমেরিকান ও তাদের সমগোত্রীদেরই লোক, উদ্দেশ্য বিচ্ছিন্ন কিছু ঘটনা ঘটিয়ে বাংলাদেশে আইএস আছে সেটা প্রমাণ করা এবং সেই অজুহাতে বাংলাদেশে আক্রমণ করা, লুটপাট করা। বাংলাদেশে সরকার ও জনগণের উচিত বিশ্ব সন্ত্রাসী লুটেরা আমেরিকা ও তার দোসরদের এ সকল জঘন্য চক্রান্তের শক্ত জবাব দেয়া ও প্রতিবাদ করা।
Noyon Chatterjee Official's photo.
Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s