সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের জন্য দায়ি মুসলিমরা নাকি অমুসলিমরা !

প্রচার করা হচ্ছে, মুসলিম মাত্রই নাকি সন্ত্রাসী। অথচ ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) দেশগুলোর পুলিশ বাহিনীর সমন্বয়ক সংগঠন ইউরোপোলের রিপোর্ট (২০০৬-০৯) অনুসারে ইউরোপের মোট সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের ০.৩২ % এর জন্য মুসলমানরা দায়ি, বাকি ৯৯.৬৮% জন্য বাকি ধর্মগুলো দায়ি।

মন্তব্য: আমার মনে হয়, মুসলমানদের উচিত ইউরোপের অমুসলিম সন্ত্রাসীদের দমনের জন্য সেখানে ড্রোন হামলা চালানো এবং বিমান দিয়ে বোম্বিং করে পুরো ইউরোপকে গুড়িয়ে দেওয়া।

Continue reading

Advertisements

সাইট ইনটেলিজেন্স গ্রুপ- এর গোপন কাজ

সাইট ইনটেলিজেন্স গ্রুপ- বেশ কয়েক বছর ধরে বাংলাদেশসহ সারা বিশ্বেই জঙ্গি হামলার তথ্য সরবরাহ করে যাচ্ছে। বিশ্ব গণমাধ্যম কোনো সন্দেহ ছাড়াই এই সাইটটির সবরাহকৃত তথ্য চোখ বন্ধ করে প্রকাশ করে। এটা এতোটাই নির্ভরযোগ্য একটি সূত্রে পরিণত হয়েছে। তার দেখাদেখি বাংলাদেশি গণমাধ্যমগুলোও কোনো যাচাই না করেই সাইটটিv তথ্য সত্য বলে প্রচার করে। সম্প্রতি দুই বিদেশি নাগরিক খুন হওয়ার ঘটনার পরপরই সাইট ইনটেলিজেন্স গ্রুপের তথ্য অনুযায়ী আইএস এর দায় স্বীকার করার খবরটি প্রথম সারির গণমাধ্যমগুলো বেশ আত্মবিশ্বাসের সঙ্গেই প্রচার করেছে। তবে সরকার ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনী এ ধরনের সম্ভাবনা উড়িয়ে দেয়ার পর এই সূত্রের নির্ভরযোগ্যতার প্রশ্নটিও সামনে এসেছে। আসুন জেনে নিই এই ওয়েবসাইটের জন্ম ও সম্পর্ক বৃত্তান্ত। রিতা কাৎজ- মধ্য বয়সী এক নারী- সার্চ ফর ইন্টারন্যাশনাল টেরোরিস্ট এনটিটিজ বা সংক্ষেপে ‘সাইট’ সবাই চেনেন সাইট ইনটেলিজেন্স গ্রুপ নামে- এই প্রতিষ্ঠানের সহপ্রতিষ্ঠাতা। বিশ্বব্যাপী সন্ত্রাসী হামলার হুমকি বিষয়ে নানা তথ্য সরবরাহই এর কাজ। প্রথমে সরকারি টাকায় চললেও এখন এরা বাণিজ্যিকভাবে এই গোয়েন্দা ব্যবসা করে। Continue reading

ইকোনোমিস্ট ম্যাগাজিনে প্যারিস হামলার বর্ণনা

ইকোনোমিস্ট ম্যাগাজিনের জানুয়ারী সংখ্যাতেই বর্ণনা করা ছিলো প্যারিস হামলা কথা, বিষয়টি স্পষ্ট করার জন্য সংক্ষিপ্ত আকারে দিলাম-

১) প্রচ্ছদে একটি দুইটি কোড ছিলো 11.5 ও 11.3। দুটি কোড সাজালে হয় 13.11.15 অর্থ্যাৎ প্যারিস হামলার দিন ১৩ই নভেম্বর ২০১৫।
২) ঘটনার স্পট যে ফ্রান্স হবে, তার প্রমাণ মাথার উপর গ্রহ/উপগ্রহ আকৃতির মাঝে ফ্রান্সের ম্যাপ।
৩) ফ্রান্সের কোথায় হবে, তার প্রমাণ ছবিতে লিওনার্দো ভিঞ্চি’র আকা নারী পোট্রেট La belle ferronnière। এই পোট্রেটটি প্যারিসের লুভর মিউজিয়ামে সংরক্ষিত। অর্থাৎ ঘটনার স্পট প্যারিস। Continue reading

মক্কার মসজিদে ক্রেণ দুর্ঘটনা ও কিছু কথা

মক্কায় মসজিদের ভেতর ক্রেন দুর্ঘটনা নিয়ে তদন্ত কমিটি গঠন করেছে সৌদী সরকার। তবে প্রাথমিকভাবে ঝড়ো বাতাসকেই দায়ি করেছে তারা।(http://goo.gl/793m7g)।

তবে এখানে যে বিষয়গুলো গুরুত্বপূর্ণ:
১) ক্রেন তৈরী করা হয় খুব হেভি ওয়েট বহনের জন্য। তাই প্রবল বাতাসে ক্রেনের পাশের অনেক ক্ষুদ্র বস্তু যেখানে স্থানচ্যুত হয়নি, সেখানে ক্রেন উল্টে যাবে এমনটা মেনে নেওয়া যায় না। সাধারণত ক্রেন দুর্ঘটনা তখনই যথন ক্রেনগুলো কোন হেভি কাজে নিয়োজিত থাকে। কিন্তু দুর্ঘটনার সময় ক্রেনগুলো কোন কাজে নিয়োজিত ছিলো না, তাই ক্রেন উল্টে যাওয়ার বিষয়টি স্বাভাবিক নয়।

Continue reading

‘সুধীর গৌতমের উপর হামলার মিথ্যা অপপ্রচার ভারতীয় মিডিয়ার

‘সুধীর গৌতমের উপর বাংলাদেশী সমর্থকরা হামলা করেছে’ এমন একটি ফেইক খবর ভারতের শীর্ষ মিডিয়াগুলো খুব ফলাও করে প্রচার করছে। যেমন:

১) ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস (http://goo.gl/qFYGZZ) ২) আইবিএন লাইভ (http://goo.gl/aLDrbw) ৩) এনডিটিভি (http://goo.gl/g0o4Ir) ৪) জি-নিউজ (http://goo.gl/fJ0g6F) ৫) এবিপি আনন্দ (http://goo.gl/2eNBV8) ৬) আনন্দবাজার (http://goo.gl/4xyM4V)

বাংলাদেশের কয়েকটি মিডিয়াও সেই ফেইক খবর প্রচার করছে: ১) প্রথম আলো (http://goo.gl/KWGg3U) ২) মানবজমিন (https://goo.gl/gmoQb7) Continue reading

মুসলমানদের বিরুদ্ধে আনন্দবাজার পত্রিকায় উল্টাপাল্টা নিউজ

কিছুদিন আগে বাংলাদেশ-ভারত ওয়ানডে ক্রিকেট সিরিজের একটা ঘটনা আপনাদের মনে আছে নিশ্চয়ই। প্রথম ম্যাচে বাংলাদেশের জয়ের পর কলকাতার সনামধন্য সংবাদ মাধ্যম আনন্দবাজার একটা নিউজ ছাপে। যেখানে আনন্দবাজারের রিপোর্টার রাজর্ষী গঙ্গোপাধ্যায় বলে, ম্যাচের পর মুস্তাফিজকে নিয়ে ভারতের ড্রেসিং রুমে মহেন্দ্র সিং ধোনির কাছে গিয়েছিলেন মাশরাফি। ভারতীয় প্রিমিয়ার লীগে (আইপিএল) মুস্তাফিজের খেলার সম্ভাবনা আছে কি-না তা জানার জন্য। একই সঙ্গে তরুণ এই পেসারকে উৎসাহ দেয়ার জন্য ধোনির কাছে একটি ব্যাটও নাকি চান মাশরাফি।

 

এ খবরখানা নিয়ে অবশ্য বাংলাদেশী মিডিয়ায় তোলপাড় হয়েছে। মাশরাফির কাছে সাংবাদিকরা প্রশ্নই করেছে, ‘সত্যিই কি আপনি বলেছিলেন ?’
উত্তরে মাশরাফি বলেছিলো- এ ধরনের খবর একটা ‘গালগল্প’।
আমি মাঝে মাঝে বুঝে পাই না, আনন্দবাজার এ ধরনের উদ্ভট খবরগুলো বানায় কিভাবে ? এ ধরনের খবরগুলো বানানোর আগে কি প্রচুর ক্যানাবিস ইনডিকা (গাজা) খাওয়ার প্রয়োজন পরে ? বিষয়টা জানতে হবে।
আজকেও সে ধরণের একটা খবর নিয়ে খুব লম্ফঝম্ফ করছে আনন্দবাজার। বলছে, বুধবার জম্মুকাশ্মীর সীমান্তে উসমান নামে এক দুর্ধষ্য পাকিস্তানী জঙ্গীকে নাকি গ্রেফতার করেছে ভারতীয় বিএসএফ। বলছে সে নাকি লস্কর-ই-তইবা সংগঠনের সক্রিয় সদস্য। যে অমরনাথে হামলার প্রস্তুতি নিচ্ছিলো। পত্রিকা আনন্দ বাজারের মতে, “ আজ সকালে সেনা পোশাকে সজ্জিত হয়ে উসমান প্রথমে বিএসএফ কনভয়ে হামলা ও পরে গ্রামবাসীদের পণবন্দী করার চেষ্টা করেছে “
কিন্তু দুঃখের বিষয় যে ছেলেটি ক্যামেরার সামনে উপস্থাপন করা হচ্ছে, তাকে দেখলে অনেকটা মানসিক ভারসাম্যহীম বলে মনে হচ্ছে, তা পায়ে নেই জুতো, সেনা পোষাক দূরের কথা স্বাভাবিক পোষাক-আষাকের কোন ঠিক নেই। Rising Kashmir এর সম্পাদক সুজাত বুখারি নিশ্চিত করেছেন যে উসমানের থেকে কোনও অস্ত্র পাওয়া যায়নি।
তাহলে এত বড় দুর্ধষ্য জঙ্গী আসলো কোথা থেকে ??
নাকি মাশরাফি-মুস্তাফিজের ঘটনার মত এটাও অত্যধিক ক্যানাবিস ইনডিকা খাওয়ার ফল ? আপনারাই বলুন।